আগুনে পুড়ে গেলে করণীয়।আগুনে পুড়ে যাওয়ার ওষধ।রোগীর খাবার তালিকা 

আগুনে পোড়া রোগীর জন্য বিশেষ কিছু দিক নির্দেশনা আমাদের আজকের পোস্টে দেয়া হলো। বিভিন্ন কারণবশত আমাদের হঠাৎ কোনো দুর্ঘটনা জনিত কারণে হাত পা অথবা শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে যেতে পারে। এসমস্ত দুর্ঘটনার জন্য তাৎক্ষণিকভাবে কি করনীয় সেটি অনেকেরই জানা থাকে না। তাই আমাদের আজকের পোষ্টে আগুনে পোড়া রোগীদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা। আশা করি এসব দিকনির্দেশনা আগুনে পুড়ে গেলে আপনি কাজে লাগাতে পারবেন। বা আপনার পরিচিত কেউ যদি আগুনে পুড়ে যায় বা শরীরের কোন অংশ আগুনে পড়ে গিয়ে থাকে তাহলে আপনি তাৎক্ষণিক এই ব্যবস্থাগুলো গ্রহণ করতে পারেন।

আগুনে পুড়ে গেলে করণীয়

আগুনে পুড়ে গেলে প্রাথমিকভাবে রোগীকে যে সমস্ত ট্রিটমেন্ট দেওয়া উচিত সেগুলো আমাদের এখানে পয়েন্ট আকারে উপস্থাপন করা হলো। কোন আগুনে পোড়া ব্যক্তির একদম শুরুতে যে সমস্ত সরকারি পদক্ষেপ নিতে হবে সেগুলো নিম্নে উপস্থাপন করা হলো।

  • আগুনে পুড়ে গেলে দ্রুত চিকিতসার ব্যবস্থা করাটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।
  • যত দ্রুত সম্ভব রোগীকে আগুন বা গরম জায়গা থেকে সরিয়ে নিন।
  • পুড়ে গেলে প্রচুর পরিমাণে পানি ঢালতে হয়।
  • আক্রান্ত স্থানটি চলমান পানিতে, সম্ভব হলে ট্যাপের পানিতে আধা ঘন্টার মতো ধরে রাখুন।
  • আক্রান্ত স্থানটি ফুলে যাওয়ার আগে সেখান থেকে ঘড়ি, বেল্ট, আঙটি, কাপড় ইত্যাদি যদি থাকে খুলে ফেলতে হবে।
  • পানিতে ধুয়ে তারপর ভেজানো তোয়ালে বা পরিষ্কার, সুতি কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে রাখতে হবে।
  • পুড়ে যাওয়া অংশে কাপড় লেগে থাকলে সেটি কেটে বের করুন। টানাটানি করা ঠিক হবে না।
  • ফোসকা পড়ে গেলে তা গলাবেন না।
  • ক্ষত স্থানে ধূলো, মাছি বা ময়লা কিছুই যেনো না লাগে।
  • দ্রুত হাসপাতালে পাঠানর ব্যাবস্থা করুন।
  • রোগির আক্রান্ত স্থানে নড়াচড়া করতে দিবেন না।
  • শ্বাসনালি পুড়ে গেলে দ্রুত (আইসিইউ) সাপোর্ট দরকার হয় তাই সময় নষ্ট করবেন না।

আগুনে পুড়ে গেলে যেটি করা যাবে না

  • ক্ষত স্থানে টুথপেস্ট, গাছের বাকল, পাতা অথবা মসলা পোড়া স্থানে লাগাবেন না।
  • লবণ মেশানো পানি, ভাতের মাড়, তেল, টুথপেস্ট, ডিম এ রকম কোনো কিছুই লাগানো যাবে না।
  • আক্রান্ত স্থান বাঁধবেন না।
  • ঠান্ডা পানি, বরফ, কুসুম গরম পানি কোনোটাই ক্ষত স্থানের জন্য উপযোগী নয়।
  • ঠান্ডা পানি দিলে ক্ষত স্থানের কোষগুচ্ছ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে।
  • কপালে, চোখের কাছে সিলভার সালফাডায়াজিন মলম হালকা ভাবে লাগাতে হবে যাতে তা চোখে না চলে যায়।
  • কখনই বরফ ঘষা যাবে না।
  • নির্দিষ্ট মলম ছাড়া অন্য কোনো মলম, জেলি, মধু ব্যবহার করা যাবে না।

আগুনে পুড়ে যাওয়ার ওষধ
হাত পুড়ে গেলে কি মলম লাগাতে হয়

  • গর্ভবতী হলে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া চিকিৎসা না নেয়াই ভালো।
  • অতিরিক্ত পুড়ে গেলে  স্যালাইন দেওয়া খুবই জরুরি।
  • যদি পোড়ার জায়গা অল্প হয় বার্না, বার্নল বা মিল্কক্রিম লাগিয়ে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে ঢেকে হাসপাতালে আনতে হবে।
  • আক্রান্ত স্থানে সিলভার সালফাডায়াজিন মলম প্রয়োগ করা যায়।
  •  বাসায় যদি কিছু না থাকে ডিমের সাদা অংশ অথবা নিওবার্নিয়া মলম লাগাতে পারেন।
  • বার্নল ক্রিম লাগানো যেতে পারে পোড়া স্থানে।
  • ব্যথা হলে প্যারাসিটামল ট্যাবলেট খেতে পারেন।
  • পরবর্তীতে দাগ কোমানোর জন্যে দাগের প্রকারভেদে লেভিসিকা ক্রিম (সিলিকন জেল), মেডারমা ক্রিম, জারজেল ক্রিম ও ভাইট ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। এই চিকিৎসা সাধারণত দীর্ঘদিনের হয়ে থাকে।

আগুনে পোড়া রোগীর খাবার তালিকা

  • ডাবের পানি বা তরল জাতীয় খাবার বেশি করে খাওয়াতে হবে।
  • পোড়া রোগীকে স্যালাইন দেয়া সম্ভব না হলে মুখে অন্তত স্যালাইন খাওয়ান।
  • এছাড়া ক্যালরি ও প্রোটিন জাতীয় খাবার যেমন ডিম বা মুরগি খাওয়ানোর পরামর্শ দেয়া হয়।
  • আক্রান্ত ব্যক্তির জ্ঞান থাকলে পানিতে একটু লবণ মিশিয়ে স্যালাইন বা শরবত করে খেতে দিন।
  • ডাবের বা খাওয়ার পানি পর্যাপ্ত পরিমাণে পান করতে দিন।
  • পুড়ে গেলে তাকে ভিটামিন-ডি সমৃদ্ধ খাবার অথবা সাপ্লিমেন্ট হিসেবে ভিটামিন-ডি খাওয়াতে হয়।
  • পুড়ে যাওয়া ব্যক্তির ক্ষত শুকাতেও ভিটামিন-ডি বেশ সহায়ক ভূমিকা রাখে।

পুড়ে গেলে কি খাওয়া উচিত নয়

আগুনে পোড়া রোগীর কি ধরনের খাবার খাওয়া অনুচিত সেই বিষয়ে কোন বিস্তারিত পাওয়া যায় নি। তবে রোগী কে বেশি করে তরল পান করাতে হবে এবং ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াতে হবে।

আগুনে পুড়ে গেলে দোয়া

আগুনে পুড়ে গেলে নিম্নের দোয়াটি পড়ে ক্ষত স্থানে ফু দিন। আল্লাহ তায়ালা মাফ করবেন ইনশা আল্লাহ।

“আজ লাবিল বাছা রব্বান্না ছি ইশফি আনতাশ শাফি শাফি লিল্লা আফতা”

শেষ কথাঃ
মনে রাখবেন অগ্নি নির্বাপনের চেয়ে প্রতিরোধই উত্তম। তাই বাসা বাড়িতে যেখানেই থাকি না ক্যানো, যথেষ্ট সেফটি ইকুইপমেন্ট রয়েছে কিনা সেটি লক্ষ রাখি। কোথাও আগুন লাগলে প্রথমেই বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করার ব্যাবস্থা করতে হবে এবং তারপর ফায়ার সার্ভিস খবর দিতে হবে। এসব জরুরী নাম্বার হাতের কাছে রাখি।

24 Update

My name is Sumon. I am a small content Writer. I like blogging a lot. I always try to write about new things. And we help everyone there with a variety of information. I hope you like my writing a lot.

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close